ভারতীয় উপমহাদেশে পরিবেশ আন্দোলনের ইতিহাস : প্রথম পর্ব

বিষ্ণোই আন্দোলন পর্ব

ভারতের পরিবেশ আন্দোলনের ইতিহাস

আজ আমরা উপলব্ধি করেছি গাছের প্রয়োজনীয়তা এবং আমাদের পরিবেশ রক্ষায় গাছের মহাবশ্যক ভূমিকা l ভারতবর্ষের এক প্রাচীন ঐতিহ্য রয়েছে পরিবেশ রক্ষায় l একটি ভারতীয় আদিবাসিজাতি বিষ্ণোই, এরা মূলত ছিল পরিবেশ ও অরণ্য নির্ভর একটি জাতি l এদের উৎপত্তি ঘটে ৬৫০-৬০০ বছর আগে, যদিও এই বিষয়টি নিয়ে বেশ কিছু মত পার্থক্য রয়েছে, কিন্তু সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল আজও এঁরা রয়েছেন রাজস্থানে, চেষ্টা করে যাচ্ছেন প্রকৃতি রক্ষার l বিষ্ণোই ; এঁরা হলেন ভগবান বিষ্ণুর উপাসক এবং তার থেকেই এঁদের এই নামের উৎপত্তি ঘটে l অন্য মতে মনে করা হয় যে, এরা যে ২৯টি নিয়ম মেনে চলত তার থেকে স্থানীয় ভাষা অনুযায়ী ২০ এবং ৯ থেকে বিশ ও নই এর মিলনে বিশনই (বিষ্ণোই) শব্দের সৃষ্টি l এঁরা প্রকৃতিকে ঈশ্বর ও শক্তির উৎস রূপে পুজো করেন l বিষ্ণোইদের গুরু হলেন গুরু জাম্বেশ্বর(১৪৫১-১৫৩৬) l এরা প্রধানত ২৯টি নিয়ম মেনে চলেন যেমন প্রাণী রক্ষা, পরিবেশ রক্ষা, বৃক্ষরক্ষা, জল সংরক্ষণ, পরিবেশ সংরক্ষণ ইত্যাদি l বিষ্ণোইরা কোনো প্রাণী হত্যা করেন না l তাঁদেরই প্রচেষ্টায় রাজস্থানের শুষ্ক মরুভূমির কিছুটা অংশ সবুজে পরিণত হয় l গুরু জাম্বেশ্বর ১২০টি শব্দের ব্যবহার করেন যা “শব্দবাণী” নামে পরিচিত l ১৪৮৫ সালে তিনি সামরাঠাল ধোরা স্থাপন করেন এবং ৫১বছর পরিব্রাজক রূপে ভারত ভ্রমণ করেন l

ভারতের পরিবেশ আন্দোলনের ইতিহাস

এই বিষ্ণোইদের থেকেই মূলত পরিবেশ রক্ষা আন্দোলন শুরু হয় ভারতীয় উপমহাদেশে আজ থেকে প্রায় তিনশো বছরেরও বেশ কিছু আগে, যা ভারতবর্ষের পরিবেশ সচেতনতার সুদীর্ঘ ঐতিহ্যের সাক্ষ্য বহন করে l যদিও ভারতে সনাতন হিন্দু ধর্মে, শাস্ত্রে, অথর্ব বেদে, পুরাণ ও উপনিষদে জল, অগ্নি, পবন প্রভৃতি প্রাকৃতিক শক্তিকে ঈশ্বর জ্ঞানে পুজো করার উদাহরণ রয়েছে lকালিদাস রচিত “অভিজ্ঞান শকুন্তলম“-এ শকুন্তলা যখন রাজা দুষ্মন্তের কাছে যাচ্ছেন তখন কাব্যকার প্রকৃতিকে সজীব কল্পনা করে, তার এক বিরহী, বিমর্ষ ও ভারাক্রান্ত ছবি এঁকেছেন l

ভারতের পরিবেশ আন্দোলনের ইতিহাস

বিষ্ণোইরা রাজস্থানের কাছে একটি জনপদে বসবাস করতেন (যোধপুরের কাছাকাছি তবে নির্দিষ্ট জায়গা নিয়ে মতপার্থক্য রয়েছে)। ১৭৩০ সালে এই বিষ্ণোইরাই প্রথম অরণ্য এবং গাছ বাঁচানোর আন্দোলন করেন, যার নেত্রী বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের এক মহিলা অমৃতাদেবী l এই আন্দোলনই জন্ম দিয়েছিল ভারতবর্ষের সব থেকে বড়ো এবং প্রভাবশালী আন্দোলন চিপকো আন্দোলনের, যা একটি দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে l বিষ্ণোইদের এই আন্দোলনই বীজ বপন করেছিল চিপকোর l আন্দোলনের সূত্রপাত হয় রাজস্থানের যোধপুরের কাছে খেজরিলি নামক একটি ছোট গ্রামে l গ্রামটিতে প্রচুর পরিমানে খেজরি (খেজুর)গাছ ছিল l রাজস্থানের মেওয়ারের রাজা অভয় সিং তার নতুন রাজপ্রাসাদ তৈরি করতে ওই গ্রামের গাছ কাটার জন্য কাঠুরিয়াদের পাঠান আর সাথে সাথে শুরু হয় সবুজের অস্তিত্ব রক্ষার সংগ্রাম l তিন সন্তানের মা অমৃতাদেবী শুরু করেন আন্দোলন, জড়িয়ে ধরেন খেজরি গাছগুলিকে l পরিবেশের অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই আর মানবতার অস্তিত্ব রক্ষার লড়াই একাত্ব হয়ে যায় l রাজার লোকেদের হাতে প্রাণ হারান তিন সন্তানসহ অমৃতাদেবী l এই আন্দোলনে সর্বমোট ৩৬৩জন বিষ্ণোই আত্মবলিদান দেন l তাঁরা মৃত্যুর আগে পর্যন্ত গাছ ছাড়েননি, জড়িয়ে ধরে রাখেন খেজরি গাছগুলিকে l যা পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনে এক অনন্য নজির,এই আন্দোলন “বিষ্ণোই অমৃতাদেবী আন্দোলন” নামে পরিচিত l পরবর্তীতে কিছু দিনের মধ্যেই উত্তরপ্রদেশ, হিমালয় পার্বত্য অঞ্চল প্রভৃতি স্থানে এই আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ে এবং সঙ্গত কারণে এই আন্দোলনই হল ভারতের প্রথম পরিবেশ সংরক্ষণ আন্দোলন l

ভারতের পরিবেশ আন্দোলনের ইতিহাস

২০১০ সালের সমীক্ষা অনুযায়ী গুরু জাম্বেশ্বরের অনুগামী সংখ্যা প্রায় ৬,০০,০০০ l বর্তমানে এঁরা রাজস্থানেই বেশি সংখ্যায় থাকেন l হিন্দু পুরাণ অনুযায়ী শ্রীকৃষ্ণের রথ টানত কৃষ্ণসার হরিণ এবং চিংকার হরিণ টানত পবন ও চাঁদের রথ, বিষ্ণোইরা এদের রক্ষা করার চেষ্টা করেন l বর্তমানে এই প্রজাতির হরিণ লুপ্তপ্রায়, দুশো বছর আগে এদের সংখ্যা ছিল প্রায় চল্লিশ লক্ষ আর এখন পঞ্চাশ হাজারেরও কম l এই হরিণদের মূলত ভারত, নেপাল ও ভুটানে দেখা যায় lপুরুষ চিংকার আকারে ও আয়তনে মহিলা চিংকারের তুলনায় বড়ো হয়, এরা প্রধানত সমতলে থাকে ফলে খুব সহজে আক্রমণের শিকার হয় l পুরুষ চিংকার বর্ণ পরিবর্তন করে ঋতু অনুযায়ী, কালো থেকে হালকা হতে হতে ক্রমশ বাদামি হয়ে যায় l বিষ্ণোই সম্প্রদায়ের মহিলারা হরিণ শাবকদের নিজেদের স্তন পান করায়|

ভারতের পরিবেশ আন্দোলনের ইতিহাস

১৯৯৮ সালে একটি চলচিত্র শ্যুটিং এর সময় কৃষ্ণসার হরিণ শিকার করে বিতর্কিত মামলায় জড়িয়ে পড়েন এক বিখ্যাত বলিউড অভিনেতা সালমান খান, বিষ্ণোই সম্প্রদায় এর বিরুদ্ধে মামলা করেন এবং প্রায় ২০ বছর ধরে সুদীর্ঘ কঠিন লড়াই লড়ে তাঁরা মামলা জেতেন, তাই পরিবেশ রক্ষায় আজও অতন্দ্র প্রহরীর মতো সংগ্রাম চালিয়ে যাচ্ছেন এই সম্প্রদায়, যা তাদের পরিবেশ রক্ষার আন্দোলনে এক বিশেষ স্থানে প্রতিষ্ঠা দিয়েছে l ভারতের পরিবেশ আন্দোলনের পথিকৃৎ করে তুলেছে l

  • চলবে
লেখকঃ সৌভিক রায়

One thought on “ভারতীয় উপমহাদেশে পরিবেশ আন্দোলনের ইতিহাস : প্রথম পর্ব

Leave a Reply

%d bloggers like this: