জ্যামাইকা চেরি

25314553239_8aa19f2f80_b.jpg

কলকাতার সঙ্গে জ্যামাইকা দেশটির অনেক যোগ। কলকাতার পথে পার্কে অজস্র জ্যামাইকান রেন ট্রি যেমন দেখা যায়, তেমনি দেখা যায় জ্যামাইকান সাগু, জ্যামাইকান লিলি, জ্যামাইকান চেরির গাছ।

ক্যারিবিয়ান দ্বীপপুঞ্জের একটি ছোট্ট দ্বীপ হলো জ্যামাইকা, তার রাজধানী কিংসটন। রেন ফরেস্টে ঢাকা গোটা দেশটি সবুজে সবুজ। কতরকমের যে গাছপালা সেখানে, তার ঠিক নেই।

Muntingia_calabura_(2).JPG

কলকাতায় ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়ালে এই গাছটির নাম জ্যামাইকা চেরি বা জ্যামাইকান চেরি। অনেকে আবার বলেন পানামা চেরি বা সিঙ্গাপুর চেরি। বৈজ্ঞানিক নাম Muntingia calabura.
জ্যামাইকান চেরির গাছ ও পাতা অবিকল আমাদের জীবন গাছের মতো। ফুল, ফল না দেখে নিশ্চিতভাবে বলা মুশকিল।

দ্রুত বর্ধনশীল গাছটি বেশ ছড়ানো ছাতার মতো এবং ২০/২৫ ফিট উঁচু। এখন ওর ফুল ও ফলের সময়। ভারী সুন্দর ফুলগুলি। আর তেমনি স্বাদু তার ফল। ফল কাঁচা অবস্থায় সবুজ, পাকলে টুকটুকে লাল। এত সুন্দর দেখতে লাগছিল, টপাটপ দুচারটি মুখে দিয়ে দিলাম। যেমন মিষ্টি স্বাদ, তেমনি মিষ্টি গন্ধ। বীজ থেকে গাছ হয় বটে কিন্তু এত ছোট বীজ যে খাওয়ার সময় মুখে লাগে না। বাগানে যাঁরা বেড়াতে আসেন, তাঁদের অনেকেই সম্ভবত একে চেনেন। তাঁরা পাকা ফল পেড়ে খেয়ে নেন নিশ্চই। কারণ পাকা ফল বেশি চোখে পড়ল না।

muntingiacalabura8.jpg

এর ফুল স্ট্রাবেরি ফুলের মতো দেখতে বলে লোকে ভুল করে একে স্ট্রবেরি গাছও বলেন।
ফুলে পাঁচটি পাপড়ি ও পাঁচটি বৃত্যংশ ও অজস্র রেণুমাখা কেশর। উত্তর-পূর্ব কোণ থেকে রোদ এসে পড়েছিল ফুলের মুখে। কি সুন্দর লাগছিল। ফুল নাকি ভালো এন্টিসেপটিক।
জ্যামাইকান চেরির পাতা নাকি ফুটিয়ে চায়ের মতো খাওয়া যায়।

Leave a Reply

%d bloggers like this: