সামতাবেড় ভ্রমণ

poribes news
5
(1)
হাওড়া-খড়গপুর লাইনের দেউলটি স্টেশন থেকে মাত্র ৩ কিমি পথ অটোতে গেলেই কথাশিল্পী শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের বাসভবন সামতাবেড়। গ্রামের মধ্যে পুকুর পাড়ে সুন্দর পরিবেশে অনাবিল শান্তির মাঝে সাবেকি আমলের বার্মিজ স্টাইলের বাড়ি। এই বাড়িতে বসে তিনি তার বহু অমূল্য গ্রন্থ রচনা করেছেন। তখন রূপনারায়ণ নদী তার বাসভবনের অতি নিকটে ছিল। দিনভর নদীর কুলু কুলু ধ্বনী তার ছলাৎ ছলাৎ ঢেউ কথা সাহিত্যিককে নতুন নতুন সাহিত্যসৃষ্টিতে অনুপ্রাণিত করত।
সামতাবেড় ভ্রমণ
এখন অবশ্য নদী পিছিয়ে গেছে বেশ খানিকটা। এখন সেখানে ধানের মাঠ, শীতকালে বনভােজনের দিনভর আয়ােজন বাসভবনটি দোতলা, চতুর্দিকে ঘােরানাে বারান্দা। কাঠের সিড়ি। দোতলার ঘরে আলমারিতে সারিবদ্ধ বই। টেবিল-চেয়ার তক্তপােষ, টেবিলের উপর দোয়াত- কালি পর্যন্ত সাজানাে। বাড়ির পাশের পুকুরটি আজও রয়েছে। বাড়ির ভেতরে পেয়ারা গাছটিও রয়েছে। শীতে বাসভবনটিতে বাহারি ফুলের চাষ করা হয়। মােটামুটি ছিমছাম পরিপাটি ব্যবস্থা। উঠোনের একপাশে শরৎচন্দ্র ও তার স্ত্রীর স্মৃতিবহনকারী দুটি পাথরের মূর্তি স্থাপন করা হয়েছে। ঐ বাসভবনের নিচতলায় সর্বক্ষণের জন্য উপস্থিত রয়েছেন বয়স্ক একজন অমায়িক ক্লান্তিহীন মানুষ। সর্বক্ষণ তিনি পর্যটকদের নিয়ে সমস্ত ঘর ঘুরিয়ে দেখাচ্ছেন, বলছেন তার সাহিত্য জীবনের বিভিন্ন সময়ের কথা। বয়স্ক কিন্তু প্রাণবন্ত।
কীভাবে যাবেন ?
হাওড়া খড়গপুরগামী যে কোনও ট্রেনে দেওলটি পৌছে অটোতে সামতাবেড় পৌঁছানাে যায়। সামতাবেড় রাতে থাকার কোনাে জায়গা নেই, দূরত্ব খুব বেশি নয় দিনে দিনে ঘুরে আসা যায়।

কাছে দূরে অচিনপুরে : ভ্রমন গাইড

লেখক – প্রবীর বসু

লেখাটিকে কতগুলি ট্রফি দেবেন ?

Click on a star to rate it!

Average rating 5 / 5. Vote count: 1

No votes so far! Be the first to rate this post.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •  

Leave a Reply

Next Post

সাতকাহানিয়া ভ্রমণ

5 (1) “হাট বসেছে শুক্রবারে, বক্সীগঞ্জের পদ্মাপারে কারাে অচেনা বা অজানা নয়। সবাই ছােটবেলায় দুলে দুলে এ কবিতা আমরা মুখস্ত করেছি। কিন্তু হাটের ছবি বর্তমানে ঝাপসা। হাট কী জিনিস তা ছােটদের বােঝাতে গেলে চলুন সাতকাহানিয়া। অলস শীতের দুপুরে বেড়ানাে এবং জীবনের অন্য এক সহজপাঠ ঝালিয়ে নেওয়া যাবে। তিনটি গ্রামেই-অযােধ্যা, সাতকাহানিয়া […]
error: কপি নয় সৃষ্টি করুন
%d bloggers like this: