অলৌকিক নয় আছে বিজ্ঞান

@
5
(2)

আগুনের উপর হাঁটাঃ-

আগুনকে ভয় পায় না এমন কোনাে প্রাণী পৃথিবীতে আছে বলে জানা নেই। অথচ বহু ধর্মীয় অনুষ্ঠানে দেখা যায় কিছু সন্ন্যাস ও ভক্তের দল গনগনে আগুনের উপর দিব্যি নির্ভয়ে হেঁটে চলে বেড়াচ্ছে। আগুন
তাদের স্পর্শও করছে না। এ রকম অকল্পনীয় ঘটনা দেখে সাধারণ মানুষ সহজেই বিশ্বাস করে নেয় যে যােগী ঋষিরা নিশ্চয়ই দেবতার আশীর্বাদধন্য ও অলৌকিক ক্ষমতার অধিকারী।

walking-on-fire-med
শুধু ভারতবর্ষেই নয় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে এই ধরনের অলৌকিক কান্ডকারখানা দেখানাের প্রবণতা আছে।বুলগেরিয়ার বার্গাসবন্দরের কাছে প্রতি বছর ৩ জুন এরকম একটি ধর্মীয় অনুষ্ঠানের কথা শােনা
যায়। এক সময় ভারতের খােদাবক্স ও আহমেদ হােসেন আগুনের উপর হেঁটে সারা পৃথিবীতে হৈ চৈ ফেলে দেয়। ইউনিভার্সিটি অফ লন্ডন কাউন্সিল ফর সাইকিকাল ইনভেস্টিগেশন নামে লন্ডনের একটি সংস্থা এঁদের আগুনের উপর হাঁটা নিয়ে গবেষণা চালায়। এই ব্যাপারে অনুসন্ধানের জন্য একটি আয়তকার নিচু জমি ঠিক করা হয়। সেটিকে কাঠকয়লা দিয়ে ভর্তি করে আগুন জ্বালিয়ে দেওয়া হয়। কাঠকয়লাগুলি জ্বলে জায়গাটি যখন গনগনে আগুনে ভর্তি হয়ে যায় তখন সেটা একটা জ্বলন্ত উনুনের আকার ধারণ করে। যার তাপমাত্রা কয়েকশাে ডিগ্রী সেন্টিগ্রেড। সাধারণ মানুষের পক্ষে এর উপর দিয়ে হাঁটা অসম্ভব হলেও খােদাবক্স বা আহমেদ হােসেনের কোনাে অসুবিধা হয়নি।
বিজ্ঞানমনস্কতা নিয়ে বিচার করলে দেখা যাবে এই সব ঘটনার পিছনে কোনাে অলৌকিকতা নেই। আসল রহস্য জানা থাকলে অভ্যাসের দ্বারা আপনি, আমি এই খেলা দেখাতে পারি। এখন দেখা যাক ব্যাপারটার পিছনে বৈজ্ঞানিক যুক্তিগুলি কী?
আগুনের উপর কোনাে জলের পাত্র বসালেই যেমন সঙ্গে সঙ্গে জল ফোটে না—তার জন্য দরকার নির্দিষ্ট তাপমাত্রা, তেমনি শরীরের কোনাে অংশ আগুনের সংস্পর্শে এলেই সেখানে ফোস্কা পড়ে না বা পুড়ে যায় না। এর জন্যও দরকার বিশেষ তাপমাত্রা। পরীক্ষা করে দেখা গেছে এই তাপমাত্রা ৫০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের কাছাকাছি আগুনের উপর দিয়ে যারা হাটেন তারা এত দ্রুত গতিতে হাটেন যে পায়ের পাতা আগুনের সংস্পর্শে মাত্র কয়েক সেকেন্ড থাকে। এতে পায়ের পাতার তাপমাত্রা ১০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের বেশি বাড়ে না। এছাড়াও বহুদিনের অভ্যাসের ফলে এদের পায়ের পাতার চামড়া মােটা হয়ে যায়। ফলে তাপ সহ্য করার ক্ষমতা বেড়ে যায়। আগুনের উপর হাঁটার খেলাগুলি বেশিরভাগ সময় ধর্মীয় অনুষ্ঠানের অঙ্গ হওয়ায় যারা খেলা দেখান তারা সাধারণত স্নান করে ভিজে পায়ে এবং ভিজে কাপড়ে আগুনের উপর হাঁটেন। এর ফলে ভিজে পা ও ভিজে কাপড় থেকে চুইয়ে পড়া জল পায়ের পাতার আগুনের তাপ কমাতে সাহায্য করে।এছাড়াও ঘৃতকুমারীর ডাঁটার রস পায়ে মেখে নিলে অথবা ফটকিরি মেশানাে জলে পা ধুয়ে তাতে সাবান মাখিয়ে পরিষ্কার কাপড় দিয়ে মুছে নিলে আগুনের উপর দিয়ে হাঁটার সময় পায়ে সাময়িক ভাবে তাপ লাগবে না। fire walking

কমলবিকাশ বন্ধ্যোপাধ্যায়

লেখাটিকে কতগুলি ট্রফি দেবেন ?

Click on a star to rate it!

Average rating 5 / 5. Vote count: 2

No votes so far! Be the first to rate this post.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •  

Leave a Reply

Next Post

মৃগী রোগ / Epilepsy

5 (2) ১৯৮৮ সালে অনুষ্ঠিত অলিম্পিক গেমস্-এ একটি আমেরিকান মেয়ে দৌড় প্রতিযােগিতায় ৩টে সােনা ও ১টি রুপাের পদক পেয়ে সবাইকে তাক লাগিয়ে দিয়েছিল। মেয়েটির নাম ফ্লোরেন্স ডেলােরেজ গ্রিফিথ জয়নার। তাকে বলা হয় পৃথিবীর সর্বকালের সব থেকে দ্রুতগামী মহিলা। তার গড়া রেকর্ড এখনও অক্ষত রয়েছে। ইনি ফ্লো জো নামে বেশি বিখ্যাত। […]
error: কপি নয় সৃষ্টি করুন
%d bloggers like this: