খাদ্যে ভেজাল ধরবেন কিভাবেঃ দুধ

খাদ্য তালিকায় দুধ সবচেয়ে প্রয়ােজনীয়। একটি শিশু জন্মানাের পর দেহের পুষ্টির জন্য মাতৃদুগ্ধ সবচেয়ে বেশি প্রয়ােজনীয়। দেহের প্রায় সব প্রয়ােজনীয় উপাদানগুলিই দুধের মধ্যে রয়েছে। দুধ একটি সুষম খাদ্য। দুধ থেকে প্রচুর পরিমানে দুগ্ধজাত খাদ্য তৈরি হয় যেমন পনির,ছানা, রসগােল্লা, সন্দেশসহ নানা ধরনের মিষ্টি, আইসক্রীম ইত্যাদি।
Image result for milk food"
ফুড সেফটি অ্যান্ড স্ট্যান্ডার্ডস অথরিটি অব ইন্ডিয়ার (FSSI) উপ অধিকর্তা জানিয়েছেন খাবারের মান নিয়ে সন্দেহ ও ভেজাল প্রমাণিত হলে আর্থিক জরিমানা ও কারাদন্ড দুই-ই হতে পারে। আন্তর্জাতিক স্তরে ভারতীয় খাদ্য শিল্পের এক বিরাট বাজারের সম্ভাবনা রয়েছে। বাস্তবে খাবারের মান নিম্নমানের। ফলে স্বাস্থ্যক্ষেত্রে সমস্যা বাড়ছে। রাস্তার ধারে, হােটেল বা রেস্তোরায় যে খাবার বিক্রি হয় তা নজরদারি করায়
দায়িত্ব রাজ্য সরকারের স্বাস্থ্য দপ্তরের।
জেলায় হেলথ ইনসপেক্টর বা ফুড ইনসপেক্টরদের খাদ্যের গুণমান ‘পরীক্ষা করার কথা। বাস্তবে খাদ্যের গুণমান পরীক্ষা করার জন্য উপযুক্ত কোন পরিকাঠামাে নেই বললেই চলে। খােলা বাজারে যেভাবে খাবার বিক্রি হয় বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই তার কোন বৈধ ছাড়পত্র নেই|
ইদানিং খােলা বাজারে গুড়াে দুধ, প্যাকেটজাত দুধ, পনির, ছানা যেভাবে বিক্রি হচ্ছে তার অধিকাংশ ক্ষেত্রেই FSSI এর ছাড়পত্র নেই।অধিকাংশই নিম্নমানের ও ভেজাল খাবার।
Image result for packet milk"
আসুন জেনে নিই দুধে কি কি ভেজাল দেওয়া হয় এবং হাতে কলমে কীভাবে ধরবেন-
১. জল, অ্যারারুট, আটা, ময়দা, ভাতের মাড়, চিনি, বাতাসা ইউরিয়া প্রভৃতি মেশানাে হয়। ল্যাকটোমিটার পাঠ ২৬°এর কম হলে বুঝতে হবে দুধে ভেজাল আছে। এই পাঠ ঠিক রাখতে ভাতের মাড়,অ্যারারুট ময়দা সহ বিভিন্ন স্টার্চ মেশানাে হয়।
 নমুনা দুধে টিংচার আয়ােডিন বা আয়ােডিন দ্রবণ মেশানাে দ্রবণ নীলবর্ণ হবে। স্টার্চ আয়ােডাইট তৈরি হবে। এর বর্ণ নীল।
Image result for bluemilk"
২. দুধে বনস্পতি বা ডালডা মেশানাে হয়। নমুনা দুধের ১০ মিলি নিয়ে ১ চামচ ঘন হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড ও ১ চামচ চিনি মিশিয়ে রাখলে দ্রবণটি লালবর্ণ হবে, বুঝতে হবে দুধে-বনস্পতি বা ডালডা আছে।
 ৩. ২০ মিলি দুধে সামান্য রােসালিক অ্যাসিড [ C19H1403 ] মেশালে দুধের দ্রবণ যদি গােলাপী বর্ণ ধারণ করে তবে বুঝতে হবে দুধে সােডা বা ক্ষার জাতীয় পদার্থ মেশানাে হয়েছে।
Image result for red milk"
৪. দুধে ইউরিয়া [ CHN,0] ধরারউপায় :১০ মিলি দুধে ১ চামচ অড়হর ডালের গুড়াে বা সােয়াবিনের গুড়াে মিশিয়ে ৫ মিনিট রাখলে যে দ্রবণটি পাওয়া যাবে, যেখানে লাল লিটমাস-এর রঙ নীলবর্ণ হবে। এক্ষেত্রে বুঝতে হবে দুধে ইউরিয়া আছে।
 ৫. দুধে চিনি বা বাতাসা মেশানাে হয়। ৫ মিলি দুধে ২ মিলি ঘন হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড সহ ৫০ মিগ্রা রিসরসিনল মিশিয়ে গরম করলে দ্রবণটির বর্ণ লাল হবে। এক্ষেত্রে বুঝতে হবে দুধে চিনি বা বাতাসা মেশানাে হয়েছে।
কী কী ক্ষতি হয় : দুধে ভেজালের ক্ষেত্রে সবচেয়ে মারাত্মক হল স্বাস্থ্যের ক্ষতি। ইউরিয়া মিশ্রিত দুধ আমদের শরীরে নানা রােগ ডেকে আনে যেমন কিডনির রােগ, ক্যানসার, সন্তান উৎপাদনে বাধা সৃষ্টি করে। এছাড়া আর্থিক ক্ষতিতাে আছেই।
Image result for ইউরিয়া মিশ্রিত দুধ"
জয়দেব দে

Published by @

পরিবেশ, পরিবেশ আন্দোলন, দূষণ, গাছ, নদী, পাহাড়, সাগর

Leave a Reply

%d bloggers like this: