বিচিত্র প্রাণী

poribes news
0
(0)

 

শামুক

খােলসযুক্ত প্রাণী। এই খােলস অনেকটা পাকানাে অবস্থায় থাকে। এটা থাকে শামুকের পিঠের উপর। পৃথিবীতে প্রায় ৮০ হাজার বিভিন্ন ধরনের শামুক আছে। কিছু শামুক জলে,কিছু স্থলে আবার কিছু বাস

দেখুন শামুক কি ভাবে চলা চল করছে - YouTube

করে সমুদ্রে বেশিরভাগ শামুকই আকারে ৩ সেন্টিমিটারের চেয়ে বড় হয় না। সবচেয়ে বড়াে আকারের শামুক হয় ২০ সেমি। অনেক অঞ্চলে শামুক মানুষের খাদ্য।

শ্লথ

এক ধরনের স্তন্যপায়ী প্রাণী, যাদের বাস দক্ষিণ আমেরিকায়। এরা সবাই খুবই ধীরগতিতে চলে। এরা প্রধানত নিশাচর। সারা জীবনই গাছে মাথা নিচু করে ঝুলে থাকতে অভ্যস্ত। এদের খাদ্য হল গাছের পাতা,
কুঁড়ি আর বীজ। এদের দেহের লােমে সবুজ শ্যাওলা দেখা যায়।

অ্যামাজনের আগুনে কী ক্ষতি হবে ...
দুধরনের শ্লথ দেখা যায়, দুটি পায়ের নখ ও তিনটি নখযুক্ত।

শৃগাল বা শিয়াল 

কুকুর প্রজাতির প্রাণী। সাধারণ শৃগাল হল লাল শৃগাল, যাদের দেখা যায়। ইউরােপ, উত্তর আফ্রিকা, উত্তর আমেরিকা আর এশিয়ার কোনাে কোনাে জায়গায়। এদের খাদ্য হল ছােট প্রাণী, পাখি, মুরগী বা ভেড়াও।

স্কুল থেকে ফেরার পথে শেয়ালের ...
শৃগাল বাস করে সাধারণতঃ মাটিতে গর্ত খুঁড়ে। এরা অত্যন্ত চতুর প্রাণী। ভারতের গ্রামে গঞ্জে এক তান্য প্রজাতির শৃগাল দেখা যায়। এরা দলবদ্ধভাবে ডাকে! কখনও কখনও একধরনের শৃগাল বাঘের
আগমনও জানিয়ে দেয়। আর তার উচ্ছিষ্টও খেয়ে থাকে। এদের বলে ফেউ।

শিম্পাঞ্জি

বানর গােষ্ঠীর প্রাণীদের মদ্যে শিম্পাঞ্জিই অনেকটা মানুষের মত জীব। পূর্ণবয়স্ক শিম্পাঞ্জি প্রায় ১.৩ মিটার দীর্ঘ হয় আর সােজা হয়ে হাঁটতেও সক্ষম। এ সত্ত্বেও শিম্পাঞ্জি চারপায়ে ভর দিয়েই চলে। শিম্পাঞ্জির জন্ম আফ্রিকার জঙ্গলে। এরা দলবদ্ধ হয়ে বাস করে তার শিশু শিম্পাঞ্জির প্রতি স্নেহপ্রবণ ও যত্নবান।

Who Would Win a Human-vs.-Chimp Wrestling Match? | Live Science

শিম্পাঞ্জি খেলতে ভালবাসে আর অত্যন্ত বুদ্ধিমান প্রাণী। পােযা শিম্পাঞ্জি মানুষের মতই ব্যবহার করতে পারে। এরা সাঙ্কেতিক শব্দ ও ভঙ্গীও বুঝাতে সক্ষম। শিম্পাঞ্জিরা খুবই ছটফটে আর নানারকম শব্দ করতে থাকে। মানুষ দেখলেই এরা শান্ত আর চুপ করে যায়।

সালামান্ডার

একমাত্র পূর্ণগঠিত উভচর, যাদের সুগঠিত লেজ থাকে। এদের অনেক সময়েই গিরগিটি বলে ভুল হয়। গিরগিটি আসলে সরীসৃপ জাতীয় প্রাণী। গিরগিটির দেহে আঁশ থাকে, সালামান্ডারের তা থাকে না। এদের শরীর আর্দ্র ও সিক্ত। এদের নখ থাকে না আর পায়ের পাতায় চারটি আঙুল থাকে। প্রায় ২৫০ প্রজাতির সালামান্ডার দেখা যায়। এদের দেখা যায় উত্তর গােলার্ধের কিছু জায়গায়। উত্তর আমেরিকা আর দক্ষিণ আমেরিকায়।

Himalayan Crocodile Salamanders - YouTube

অন্যান্য উভচর প্রাণীর মত স্যালামান্ডার আর্দ্রতা পছন্দ করে। এরা তাপ সহ্য করতে পারেনা। এরা প্রধানত নিশাচর ও আমিষভােগী। ছােট ছােট প্রাণী ও ডিম খেয়ে জীবনধারণ করে। সালামান্ডারের শ্রবণশক্তি নেই কারণ এদের কানের পর্দা থাকে না। এরা মাটিতে কম্পন শুনে শত্রু বা খাদ্যের অবস্থান টের পায়। এরা দৈর্ঘ্যে এক ইঞ্চি থেকে পাঁচ ফিট পর্যন্ত হয়।

সী-হর্স বা ঘােড়া মাছ

এক বিচিত্র জীব। এদের দেহ অত্যন্ত হাল্কা। এদের ঘােড়া-মাছও বলে কারণ এদের মাথা অনেকটা ঘােড়ার মতাে দেখতে। এদের দৈর্ঘ্য ১৫ থেকে ২৫ সেন্টিমিটার। সী হর্সের লেজ গােটানাে থাকে, এর সাহায্যে এরা জলে ওঠানামা করে বা সাঁতার দেয়। পুরুষ ঘােড়া মাছ ডিম পাহারা দেয়।

sc-aquarium-lined-sea-horse-animal-spec-sheet

সামুদ্রিক আগাছার সঙ্গে এরা প্রায় লেগে থাকে। এদের দেখা যায় ক্রান্তীয় আর উষ্ণ এলাকার সমুদ্রে।

স্কাঙ্ক

বেজি প্রজাতির একধরনের প্রাণী। তিনটি প্রজাতির স্কঙ্ক দেখা যায়। এদের কারও গায়ে চক্র বা ডােরা থাকে। এরা নিশাচর। ভয় পেলে এরা লেজের তলায় থাকা গ্রন্থি থেকে দুর্গন্ধযুক্ত তরল ছিটিয়ে
দেয়, যার গন্ধ বেশ কয়েকদিন থাকে। স্কাঙ্কের খাদ্য হল ইদুর, পাখির ডিম ও গাছের কচিপাতা ইত্যাদি। এরা উত্তর আমেরিকায় বাস করে।

সীল

সীল বা সীল লায়ন সামুদ্রিক স্তন্যপায়ী প্রাণী। এদের অধিকাংশই বরফ শীতল জলে বাস করে এবং বেশিরভাগ সময়ই সমুদ্রের জলে কাটায়। মাঝে মাঝে এরা জলের বাইরে এসে সূর্যের আলাে উপভােগ
করে। সীলের দেহ একটু চ্যাপ্টা আর পা হাঁসের পাতার মত জোড়া।

দ.আফ্রিকায় সিল সম্রাজ্য!

যা সাঁতারের উপযুক্ত। এদের শরীরে ত্বকের নিচে পুরু চর্বির স্তর থাকে ঠান্ডা থেকে আত্মরক্ষার জন্য। সীল মাছ ও অন্যান্য সামুদ্রিক প্রাণী খেয়ে জীবনধারণ করে। এদের মাথার পাশে ছােট কান থাকে। দেহ লােমশ। পুরুষদের ঘাড়ে কেশরও থাকে।

স্পঞ্জ 

খুবই সরল ধরনের জলজ প্রাণী। বেশিরভাগ স্পঞ্জ দেখা যায় উষ্ণ অঞ্চলের সাগর ও মহাসাগরে। এদের কিছু মিষ্টি জলেও বাস করে। স্পঞ্জের দেহ ছােট ছােট গর্ত নলে পূর্ণ জেলির মত নরম পদার্থে তৈরি। নলের মাথা উপরের দিকে থাকে। জলে মিশ্রিত অক্সিজেন এই জলের মধ্যে দিয়ে শরীরের নানা অংশে পৌঁছয়। এরা এইভাবেই শ্বাসগ্রহণ করে।

স্পঞ্জ প্রাণী না উদ্ভিদ
স্পঞ্জের মৃত্যু হলে এটি শুষ্ক হয়ে যায়। এই শুষ্ক স্পঞ্জ স্নানের সময় সাবান মাখতে ব্যবহার করা হয়। বেশিরভাগ স্পঞ্জ পাওয়া যায় মেক্সিকো উপসাগর ও ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চল থেকে। বর্তমানে অবশ্য কৃত্রিম প্লাস্টিকের স্পঞ্জ বানানাে হয়।

স্টার ফিস বা তারামাছ

একধরনের জলজপ্রাণী। এরা সমুদ্রের তলায় বাস করে। বেশিরভাগ তারামাছের পাঁচটি বাহু থাকে যা অনেকটা চাকার ধারের মত মনে হয়। এরা মেরুদন্ডহীন হলেও শরীরের কাঠামাে
হাড়ের মতাে শক্ত।

2Pcs Dried Star fish Sea Star DIY Beach Cottage Wedding Decor ...

নিচে থেকে ছােট্ট নলের মতাে এদের পা বেরিয়ে আসে। তারামাছ ঝিনুকের মুখ খুলে খেতে পারে। ঝিনুকের খােলস এর বাহু বা পদের সাহায্যে খােলে। এরা পাকস্থলীর অর্ধেক অংশ, মুখ
দিয়ে বের করতে পারে আর সেইভাবেই খাবার খায়।

সিন্ধু ঘােটক বা ওয়ালরাস 

সামুদ্রিক প্রাণী। এর মুখের দুপাশে থাকা বিরাট খড়গের মতাে দাঁতকে, হাতির দাঁতের মতােই মনে হয়। এক একটি দাঁত প্রায় এক মিটার পর্যন্ত লম্বা হয়। এই দাঁতের সাহায্যে সিন্ধুঘােটক কিনুক, মাছ ইত্যাদিছাড়িয়ে খেতে পারে। দাঁতের সাহায্যে এরা আত্মরক্ষাও করে।

File:Pacific Walrus - Bull (8247646168).jpg - Wikimedia Commons

মেরু ভালুকরাও তাই এদের এড়িয়ে চলে।ওয়ালরাস দেখা যায় আটলান্টিক ও প্রশান্ত মহাসাগরীয় মেরু অঞ্চলের নিদারুণ ঠান্ডায়। এরা বিরাট আকারের প্রাণী। কোন কোন পূর্ণবয়স্ক সিন্ধুঘােটক দৈর্ঘ্যে ৪ মিটারও হয়। ওজন প্রায় ১৮০০ কিলােগ্রাম। দাঁত ও চামড়ার লােভে শিকারের ফলে সিন্ধুঘােটক বিলুপ্ত হওয়ার আশঙ্কায় ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দে আইন করে সিন্ধুঘােটক শিকার নিষিদ্ধ করা হয়।

 শৈবাল কুমার গুহ

লেখাটি বিজ্ঞান অন্বেষক এর সেপ্তেম্বর-অক্টবর ২০০৮ থেকে সংগৃহীত।

লেখাটিকে কতগুলি ট্রফি দেবেন ?

Click on a star to rate it!

Average rating 0 / 5. Vote count: 0

No votes so far! Be the first to rate this post.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •  

Leave a Reply

Next Post

উত্তরবঙ্গের অরণ্য

0 (0) বক্সা টাইগার রিজার্ভ ফরেস্ট (Buxa Tiger Reserve ) পশ্চিমবঙ্গের ২য় এব উত্তরবঙ্গের ১ম ব্যাঘ্র প্রকল্প (Tiger Project) এলাকা হল এই বক্সা বাঘ বন। জলপাইগুড়ি জেলার মহকুমাতে অবস্থিত এই বক্স বনভূমি অঞ্চল। বর্তমানে এর আয়তন ৭৫৯ বর্গ কিঃমিঃ আলিপুরদুয়ার ১৯৮২-৮৩ সালে সরকারিভাবে ব্যাঘ্র প্রকল্প হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করে। বক্সা […]
error: কপি নয় সৃষ্টি করুন
%d bloggers like this: