পার্থেনিয়াম উপকারী না অপকারী

poribes news
5
(1)

ভূমিকা :

পার্থেনিয়াম (Parthenium) গাছটির সাথে আমরা সকলেই কম বেশি পরিচিত। গাছটিকে আমরা আমাদের প্রায় সব দিকেই জন্মাতে দেখি। প্রথমেই বলে রাখি, এটি একট আগাছা (Weed), আরও বিস্তৃতভাবে বলা যেতে পারে বহিরাগত আগাছা (Invasive Allien Weed)। বর্তমানে গাছটি কিন্তু একটা বড়াে সমস্যার কারণ হয়ে দেখা দিয়েছে।

উৎসঃ

আগেই বলেছি গাছটি বহিরাগত। গাছটি আমাদের দেশে এসেছে আমেরিকা দেশ থেকে। আমাদের দেশে গাছটি প্রথম পাওয়া যায় মাহরাষ্ট্রের পুণেতে, ১৯৫৫ সালে। পশ্চিমবঙ্গে গাছটি এসেছে। ১৯৭৫ সালে এবং পাওয়া গেছে বর্ধমানের ডানকুনিতে।

সংক্ষিপ্ত বিবরণঃ

প্রথমে আমরা উদ্ভিদ জগতে গাছটির অবস্থান সম্পর্কে আলােচনাকরি। গাছটির
Class: Anigiospermae
Order:Campanulatae
Family: Asteraceae
Tribe: Heliantheae
Subtribe:Ambrosiinae
Genus: Parthenium
Species: Hysterophorus
গাছটি প্রায় সবধরনের মাটিতে জন্মাতে পারে। তবে অতিরিক্ত ক্ষারীয় মাটি (Alkaline Soil) এর পক্ষে অনুকুল নয়। আমরা অনেক সময় গাছটিকে মাটিতে ছড়িয়ে থাকতে দেখি এবং বৃদ্ধি তখন খুব একটা হয়। এটিকে Rosette Stage বলা হয়। মাটিতে যখন জল পর্যাপ্ত (Moisture Stress) থাকে না, তখন Rosette Stage পরিলক্ষিত হয়।

এই সময় গাছটি কিন্তু তাদের শারীরবৃত্তিয় ক্রিয়াকলাপ ঠিকঠাক রাখে ইভােল অ্যাসিটিক অ্যাসিড অক্সাডেস (IAAL) এবং পারক্সিডেজ (Paroxidase) উৎসেচকের মাধ্যমে। এরপর বর্ষার জল পেলেই গাছটি কিন্তু দ্রুত বৃদ্ধি ঘটায় এবং এর ফলে পার্শ্ববর্তী গাছ-গাছালির বেঁচে থাকাকষ্টকর হয়।

পার্থেনিয়াম এত বাড়ে কেন ?

গাছটি সাধারণত বংশ বিস্তার করে বীজের (Seed) মাধ্যমে। একটা পরিণত পার্থেনিয়াম গাছ ১৫,০০০ বীজ তৈরী করে। বীজগুলি খুব হালকা এবং তারা সহজেই জল ও বাতাসের মাধ্যমে প্রবাহিত হতে পারে। একমাত্র এই কারনেই পার্থেনিয়াম গাছ দমন করা খুব কঠিন হয়ে পড়েছে। একটি পরিণত পার্থেনিয়াম গাছ কমপক্ষে ৭০০০ ফল (Cypsella) তৈরী করতে পারে।

পার্থেনিয়াম এর ক্ষতি

সাধারণত আমরা প্রত্যেকে পার্থেনিয়াম গাছকে একটা বিষাক্ত গাছ বলেই গণ্য করি। প্রায় এটা শুনে থাকি, যে এই গাছে হাত দিলে হাত চুলকায়, জ্বালা করে। এর কারণ, যদি আম গাছটিকে খুব খুটিয়ে দেখি, দেখব অসংখ্য রােম (Trichome) রয়েছে পুরাে গাছটিতে।  এই Trichome গুলি Parthenin নামে একটি বিষাক্ত রাসায়নিক পদার্থ তৈরী করে যেটা আমাদের দেহে চুলকুনির সৃষ্টি করে।

এছাড়া গাছটি যেখানে জন্মায়, সেখানকার মাটিতে বিভিন্ন জৈব অ্যাসিড (Organic Acid) তারা
নিঃসৃতকরে।
জৈব অ্যাসিডগুলি হল-
• Caffcic Acid
• Ferulic Acid
• Anisic Acid
p-coumaric acid
p-hydroxybenzoic acid
এই সমস্ত জৈব অ্যাসিড মাটির ক্ষয়সাধন করে এবং চাষের অনুপযুক্ত করে তােলে।

উপকারী ভূমিকা ঃ

আপনাদের মনে হতেই পারে, যে গাছের এত অপকারী দিক আছে, সেই গাছের আবার উপকারী দিক থাকতে পারে না কি? এটা কিন্তু ভুল। পার্থেনিয়াম-এর নানা উপকারী দিক আছে।

উপকারী দিকগুলিআমরা এবার আলােচনাকরি-

১) কম্পােস্ট সার প্রস্তুতি ঃ পার্থেনিয়াম এর কচি চারা (young seedling) দিয়ে কম্পােস্ট সার তৈরী করা হয়। সেই সার থেকে আমরা ৩০৬% নাইট্রোজেন, ১% ফসফরাস এবং ১% পটাশ পেয়ে থাকি যা জমির উর্বরতা শক্তি বৃদ্ধি করে।

২) জৈব কীটনাশক (Bio-pesticides)ঃ পার্থেনিয়াম গাছের নিঃসৃত রস (Extracts of Parthenium) ব্যবহৃত হয় ল্যাদা পােকা দমনে।

৩) জৈব গ্যাস প্রস্তুতি (Bio gas) ঃ পার্থেনিয়াম গাছ গরুর মূত্রের (Cattle urine) সাথে মিশিয়ে জৈবগ্যাস তৈরীকরাহয়।

৪) জৈব আগাছানাশক প্রস্তুতি (Bio-herbiside) ঃ পার্থেনিয়াম নিজে একটা আগাছা, অথচ এটি থেকে আমরা আগাছানাশক পেয়ে। থাকি। ১০% পার্থেনিয়ামের জলীয় দ্রবণ (10% aqua extract) আগাছানাশক হিসবে ব্যবহৃত হয়। পার্থেনিয়াম গাছের শিকড় নিঃসৃত রস (root extract) মুথা ঘাস (Gypsum rotundus)দমনে ব্যবহৃত হয়।

৫) ফুল ফোটার আগের (Pre-flowering) দশায় পার্থেনিয়াম গাছ একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস প্রােটিন, Vit. A, E and জ্যান্থোফিল সুতরাং আমরা দেখলাম যে, আমাদের এটা উচিত তাদের কাছে এ বিষয়ে পর্যাপ্ত জ্ঞান সরবরাহ করা এবং তাদেরকে এ ব্যাপারে উদ্যোগীকরে তােলা।

শমীক দে

লেখাটি বিজ্ঞান অন্বেষক এর সেপ্টেম্বর- অক্টোবর ২০১৬ সংগৃহীত।

লেখাটিকে কতগুলি ট্রফি দেবেন ?

Click on a star to rate it!

Average rating 5 / 5. Vote count: 1

No votes so far! Be the first to rate this post.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •  

Leave a Reply

Next Post

ইমিউনিটি বাড়ানোর বৈজ্ঞানিক উপায়

5 (1) ইমিউনিটি কি ? ইমিউনিটি(অনাক্রম্যতা) অর্থাৎ আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা !  ইমিউনিটি(অনাক্রম্যতা) আমাদের দেহের এক তন্ত্র,যা আমাদের রোগ প্রতিরোধ করার শক্তি প্রদান করে । প্রত্যেকের দেহেরই এক স্বাভাবিক রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা রয়েছে,শরীরে রোগবীজাণু প্রবেশ করলেই এরা সক্রিয় হয়ে উঠে । অনেকটা বি.এস.এফ এর মতো,অনুপ্রবেশ ঘটলেই আক্রমণ ! সেই রকম […]
error: কপি নয় সৃষ্টি করুন
%d bloggers like this: