আন্তর্জাতিক নদী রায়ডাক

ভুটান ভারত ও বাংলাদেশের একটি আন্তর্জাতিক নদী রায়ডাক।
নদীটির উৎস হিমালয় পর্বতমালা ভুটানের চুমালা রহি শৃঙ্গ থেকে (7314 মিটার) খরস্রোতা এই নদীটি পাহাড়ি ঢালে অত্যন্ত তীব্র বেগে ছুটে চলেছে। নদীটি উৎস মুখ থেকে দক্ষিণ-পূর্ব দিকে প্রবাহিত হয়ে তুলনামূলক মুক্ত উপত্যকায় পড়েছে,এবং কাছাকাছি পার্বত্য অঞ্চল থেকে একাধিক ছোট নদী থিম্পু,পারোচু, হাচু, এসে মিশেছে উচ্চ পার্বত্য অঞ্চলে। উচ্চ পার্বত্য অঞ্চলে ভুটানের তৈরি অসংখ্য ড্যাম, হাইড্রাল প্রজেক্ট নদীটিকে জলশূন্য করে দিয়েছে।

উত্তরবঙ্গের নদী
উত্তরবঙ্গের নদী

 

পশ্চিমবঙ্গের ডুয়ার্স অর্থাৎ আলিপুরদুয়ার জেলা ও কোচবিহার জেলার উপর দিয়ে নদীটি প্রবাহিত রাইডারকে তিনটি শাখার মধ্যবর্তী ধারাটি মরা রায়ডাক বা বুড়ো রায় ডাক নামে পরিচিত, পশ্চিমের ধারাটি এক নম্বর রাইডাক বা দীপা রায়ডাক, পূর্বের ধারাটি পূর্ব রায়ডাক বা দু’নম্বর রায়ডাক নামে পরিচিত।

রায়ডাক চেংটিমারী তালুকের উত্তর-পশ্চিম দিয়ে কোচবিহার জেলার শীর্ষ করে এবং ওই তালুকের পশ্চিম সীমানা ধরে নেমে এসে কোচবিহারের জেলার অভ্যন্তরে প্রবেশ করেছে।প্রাচীন রায়ডাক বহুবার তার গতিপথ পরিবর্তন করেছে। তবে বর্তমানে দীপা রায় ডাকের সাথে মিলিতভাবে প্রবাহিত হয়ে প্রথমে পশ্চিম ও মধ্য বালাভূতে,(কোচবিহার জেলা) গদাধর এর সাথে মিলিত হয় এবং কিছুটা দক্ষিনে কালজানি তোর্ষার সম্মিলিত ধারার সাথে মিলিত হয়।

এখান থেকে চারটি নদীর মিলিত ধারা বালাভুত এর সীমানা ছাড়িয়ে ডান দিকে চর বালাভুত কে রেখে আসামের সীমানা স্পর্শ করে বাংলাদেশের সীমানা ঘেঁষে ঝাউ কুঠি অঞ্চল থেকে দক্ষিনে নেমেছে বালা ভুতের দক্ষিনে প্রায় এক কিলোমিটার এগিয়ে বাংলাদেশকে স্পর্শ করে আবার ভারতে প্রবেশ করেছে এবং প্রায় এখান থেকে দেড় দু কিলোমিটার প্রবাহিত হওয়ার পর পাকাপাকিভাবে বাংলাদেশের কুড়িগ্রাম জেলার ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে দুধকুমার নদী নামে এবং দুধকুমার ব্রহ্মপুত্রে মিলিত হয়েছে।

অনুপ হালদার

Leave a Reply

%d bloggers like this: