যাত্রী পায়রা

poribes news
5
(1)

Passenger Pigeon      (Ectopistes migratorius)

না, আমরা কোনদিন দেখিনি যাত্রী পায়রা। আর দেখতেও পাব না। মার্থা নামক যাত্রী পায়রার শেষ বংশধরটি মৃত্যু হয়েছে আমেরিকার সিনসিনাটি চিড়িখানায়, ১লা সেপ্টেম্বর ১৯১৪ সালে।

এরা পৃথিবীর সবচেয়ে বড় দল হিসাবে চিহ্নিত ছিল এমনকি রকি পর্বতমালার পঙ্গপালের দলের থেকেও বড়।

যাত্রী-পায়রা
যাত্রী-পায়রা-নির্বিচারে-হত্যা-করা-হয়েছিল

১৮৬৬ সালের একটি তথ্য থেকে জানা যায় যে উত্তর আমেরিকার ওন্টারিওতে একটি যাত্রী পায়রার দল দেখা গিয়েছিল যা ১ মাইল চওড়া, ৩০০ মাইল লম্বা ছিল। একটি নির্দিষ্ট বিন্দু অতিক্রম করতে তাদের ১৪ ঘন্টা সময় লেগেছিল। অনুমিত যে এই দলে প্রায় ৩.৫ কোটি পাখি ছিল।

যাত্রী পায়রার পুরুষরা ৪২ সেন্টিমিটার, স্ত্রী ৩৮ সেন্টিমিটার এবং লেজটি প্রায় ২০-২৩ সেন্টিমিটার লম্বা হত। ওজন ৩৪০ থেকে ৪০০ গ্রাম।

গ্রীষ্মকালীন প্রজননের সময় এরা পূর্ব আমেরিকার রকি পর্বত অঞ্চলে অবস্থান করত। শীতকালে মধ্য কানাডা, দক্ষিণ আমেরিকা, মেক্সিকো ও কিউবায় ছড়িয়ে পড়ত। কয়েকশ বর্গ কিলােমিটার জুড়ে
এদের বাসা দেখা যেত।

এক একটি গাছে ১০০’র বেশি বাসা থাকত। এই সামাজিকতা ও দলবদ্ধতা তাদের শিকারী প্রাণীদের হাত থেকে রক্ষা করত। কিন্তু এই রক্ষা কবচ মানুষ নামক শিকারীর কাছে ছিল সুবর্ণ সুযােগ। ১৯০০ সালের মধ্যে তারা পৃথিবী থেকে মুছে গেল।

উইসকনমিনে একটি প্রজনন ক্ষেত্রে ৮৫০ বর্গমাইল জুড়ে প্রায় ১৩ কোটি ৬০ লক্ষ বসা ছিল, একটি মাত্রা ডিম থেকে ১২ থেকে ১৪ দিনের মধ্যে বাচ্চা হত। পুরুষ ও স্ত্রী উভয়ই বাচ্চার লালন পালন করত। এরা প্রধানত বিভিন্ন বীজ, কেঁচো ও পােকামাকড় খেতাে।

আমেরিকায় উপনিবেশ তৈরি হওয়ার শুরুর দিকে যাত্রী পায়রার নিধন যজ্ঞ শুরু হয়। এতাে সহজলভ্য হওয়ায় শুয়ােরের খাবার থেকে জমির সার হিসেবেও এদের ব্যবহার হতে থাকে। ক্রীতদাসদের জন্য
সবচেয়ে সস্তা খাবারের যােগান ছিল পায়রার মাংস।

১৮৫০ সাল থেকে যাত্রী পায়রার সংখ্যাল্পতা চোখে পড়তে থাকে, কিন্তু হত্যা চলতেই থাকে। ১৮৭৮ সালে একটি প্রজনন ক্ষেত্র থেকে প্রতিদিন প্রায় ৫০,০০০ পাখি মারা হত। একটি মাত্র ডিম থেকে
হওয়া বাচ্চাকে বড় করার আগেই পূর্ণ বয়স্করা শিকারে পরিণত হত।

ফলত ১৮৯৬ সালে ২,৫০,০০০ পাখির দলটির হত্যার সাথে সাথেই দলগত ভাবে যাত্রী পায়রার অস্তিত্ব লােপ পেল। শিকার ছাড়াও বনভূমি কমে যাওয়াও এদের লােপ পাওয়ার পরােক্ষ কারণ এবং এটিও
প্রত্যক্ষভাবে মানুষেরই কুকীর্তি।

যাত্রী পায়রা সংরক্ষণের ব্যর্থ চেষ্টা —

মিশিগান অঞ্চলে বিল পাশ করে প্রজনন ক্ষেত্রের ৩ কিলােমিটারের মধ্যে শিকার করা নিষিদ্ধ করা
হয়। তবে এই আইন পালতি হয়নি। ১৮৯৭ সালে ১০ বছরের জন্য যাত্রী পায়রা হত্যা নিষিদ্ধ করা হয়। কিন্তু সে সময় যে ছােট ছােট দলগুলি বেঁচেছিল তাদের পক্ষে সফল প্রজনন করে অস্তিত্ব টিকিয়ে
রাখা সম্ভব হয়নি। বন্দী অবস্থায় প্রজননের চেষ্টাও সম্পূর্ণ ব্যর্থ হয়েছিল।

শেষ যাত্রী পায়রা মার্থা ওয়াশিংটন এর দেহ মিথসােনিয়ান ইনিস্টিটিউটে হিমায়িত করে সংরক্ষণ করা হয়েছে যা জনসাধারণের সন্মুখে আনা হয় না। মার্থার প্রতিমূর্তি আজও সিনসিনাটি চিড়িয়াখানায়
মানুষের নৃশংসতার পরিচয় দিয়ে চলেছে।

কল্যাণ কর রায়

লেখাটি বিজ্ঞান অন্বেষক থেকে সংগৃহীত।

লেখাটিকে কতগুলি ট্রফি দেবেন ?

Click on a star to rate it!

Average rating 5 / 5. Vote count: 1

No votes so far! Be the first to rate this post.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •  

Leave a Reply

Next Post

দাঁতের ব্যথা কমানোর বৈজ্ঞানিক উপায়

5 (1) দাঁত নাকি মানুষের চেয়েও অপরাধপ্রবণ । সারা জীবনে অনেক পাপ কাজ করে। পাঁঠা চিবোয়, মুরগির ঠ্যাং ভাঙে, মাছের জীবন নাশ করে। দাঁতের সব কাজই হলো নাশকতামূলক। একটাও গঠনমূলক কাজের দৃষ্টান্ত নেই। সারা জীবন খিঁচিয়ে গেল, চিবিয়ে গেল, কামড়ে গেল। পাপের বেতন কী? মৃত্যু। তাই মানুষের আগেই তার দাঁত […]
দাঁতের-ব্যথা-কমানোর-বৈজ্ঞানিক-উপায়
error: কপি নয় সৃষ্টি করুন
%d bloggers like this: