মোবাইলের জন্ম ও রেডিওর থেকে অনুপ্রেরণা

Subhankar
5
(2)

মবাইল-ফোনের-জন্ম

আজ থেকে পনেরো বছর আগে মোবাইল ফোন সম্পর্কে আমাদের ধারণা ছিল খুব সীমিত। তখন খুঁজলে এলাকার সবচেয়ে সম্ভ্রান্ত পরিবারে একটি টেলিফোন পাওয়া যেত। আজকের চিত্রটা একেবারেই আলাদা, ছোটো বাচ্চা থেকে বৃদ্ধ সবার হাতেই গ্যাজেট মোবাইল থাকে সর্বাগ্রে। একে অপরের সাথে সামনা সামনি কথা বলা অপেক্ষা আমরা ভার্চুয়াল জগতের প্রতি বেশি আকৃষ্ট। আধুনিক কালের প্রযুক্তিতে যেসব আবিষ্কার মানুষের জীবনকে সবচাইতে বেশি প্রভাবিত করেছে – তার মধ্যে মোবাইল ফোন বা সেল ফোনের সাথে হয়তো আর কোন কিছুরই তুলনা চলে না।

রেডিওর প্রভাব ও অনুপ্রেরণা

মোবাইল ফোন সম্পর্কে কিছু বলার আগে টেলিফোন আর রেডিওর কথা বলে নেওয়া দরকার। ১৮৭৬ সালে মাত্র ২৯ বছর বয়সে টেলিফোন উদ্ভাবন করেছিলেন অ্যালেকজান্ডার গ্রাহাম বেল। তার এক বছর বাদে গ্রাহাম বেল টেলিফোন কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করেন তিনি বাণিজ্যিক ভিত্তিতে টেলিফোন পরিষেবা দেওয়া শুরু করেন। রেডিও আসে টেলিফোনের অনেক পরে।

প্রথম রেডিও স্টেশন চালু হয় ১৯২২ সালে। কিন্তু অতি অল্প সময়ের মধ্যেই এটি অসাধারণ জনপ্রিয়তা লাভ করেছিল। রেডিওর যেটা মস্ত বড় সুবিধা সেটা হল এটি চলে বেতারে। ঘরে বাইরে যে কোনও জায়গা থেকেই রেডিও শুনতে কোনো অসুবিধা ভোগ করতে হতো না। এই সুবিধা যদি টেলিফোনে থাকত অর্থাৎ যে কোনও জায়গা থেকে যদি টেলিফোন ব্যবহার করা যেত, তা হলে এর উপযোগিতা যে আরও অনেক গুণ বাড়ত তাতে কোনও সন্দেহ নেই।

রেডিওর উদ্ভাবন হতে না হতেই বিজ্ঞানী ও প্রযুক্তিবিদরা উঠে পড়ে লাগলেন রেডিও-র প্রযুক্তি ব্যবহার করে যদি একটি চলমান টেলিফোন ব্যবস্থা তৈরি করা যায়। সাধারণ ভাবে রেডিও আর টেলিফোনের মধ্যে প্রাথমিক তফাৎ হল যে, রেডিও একমুখী। অর্থাৎ এতে শক্তিশালী প্রেরকযন্ত্র বা ট্র্যান্সমিটার দিয়ে গান-বাজনা-কথা ইত্যাদি সম্প্রচার করা যায়।

গ্রাহকযন্ত্র বা রিসিভার-এর মাধ্যমে যে কেউ বহু দূর থেকেও তা শুনতে পায়। এই ভাবে সবার জন্য একমুখী প্রচার করাকে বলা হয় ‘ব্রডকাস্ট’। অন্য পক্ষে টেলিফোনের কথাবার্তা সব সময়ে দুমুখী। টেলিফোনের মাধ্যমে দু’জনে নিজেদের মধ্যে কথাবার্তা বলতে পারে – সবাইকে তা না শুনিয়ে। এই তফাতটা চিন্তা করলে বোঝা যায় যে, এই দুই প্রযুক্তিকে মেলানো খুব একটা সহজসাধ্য ব্যাপার নয়।

মার্টিন কুপার – মোবাইলের জনক:

প্রথম মোবাইল ফোন তৈরি হয়েছিল ১৯৭৩ সালে, আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরে – আর তা তৈরি করেছিলেন ইঞ্জিনিয়ার মার্টিন কুপার। তাকেই বলা হয় মোবাইল ফোনের জনক। ইতিহাস বলে, ১৮৮১ সালে প্রথম কলকাতায় টেলিফোনের মাধ্যমে কথা বলা ও শোনা হয়।

Who Invented the First Mobile Phone? - YouTube

কিন্তু আসল ব্যাপার হল, এর পাঁচ বছর আগে, ১৮৭৭ সালেই কলকাতায় টেলিফোনের সাহায্যে প্রথম কথোপকথন হয়েছে। আর ১৮৮১ সালে ওরিয়েন্টাল টেলিফোন কোম্পানি প্রথম কলকাতায় টেলিফোন এক্সচেঞ্জ স্থাপন করে। তখন থেকেই যে টেলিফোন ঘরে ঘরে পৌঁছে গেছে এরকমটা একেবারেই নয়। কিন্তু শেষ পনেরো বছরে মোবাইলের ব্যবহার বেড়েছে মাত্রাতিরিক্ত।

দ্রুত যোগাযোগ ব্যবস্থার জন্য মোবাইল ফোন এত জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। মোবাইল লার্নিং আজকের দিনে শিক্ষাগত প্রযুক্তির অন্যতম মাধ্যম হিসেবে বিবেচিত। ব্যক্তিগত ইলেকট্রনিক মিডিয়াম ব্যবহারের দ্বারা বিষয়বস্তুকে আত্তীকরণ ও শিখন-ই হল মোবাইল লার্নিং। এটি দূরশিখনের অন্যতম মাধ্যম। প্রথাগত শিখনের বাইরে নিজের মনমতো শিখনে শিক্ষার্থীদের উৎসাহিত করে। ওয়ারলেস নেটওয়ার্কের সুবিধা ও স্বতঃস্ফূর্ত এই প্ল্যাটফর্ম সহজেই তথ্য আদান-প্রদানকে আমাদের অধিগত করেছে।

ট্রাক্সলার এর মতে, “Mobile learning is defined as an educational provision, where the sole or dominant technologies are handheld or palmtop devices.

সাধারণভাবে ভিডিয়ো, অডিয়ো, ইমেজ, অ্যানিমেশন ও ইন্টারাক্টিভ পদ্ধতির মাধ্যমে সহজেই শিক্ষার্থী যেকোনো বিষয়ে জ্ঞান লাভ করতে পারে। যদিও এই পদ্ধতিতে শিক্ষালাভ যথেষ্ট ব্যয়বহুল, কম মেমরি স্টোরেজের ডিভাইসে প্রয়োজনীয় তথ্যসামগ্রী অনেক সময় ধারণ করা যায় না। তবে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হল এই পদ্ধতিতে শিক্ষার্থী নিজের ইচ্ছে ও চাহিদার দিকে গুরুত্ব দিতে পারেন।

লেখাটিকে কতগুলি ট্রফি দেবেন ?

Click on a star to rate it!

Average rating 5 / 5. Vote count: 2

No votes so far! Be the first to rate this post.

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •   
  •   
  •   
  •  

Leave a Reply

Next Post

আমেদিও_অ্যাভোগেড্রো

5 (2) ১৭৭৬ সালের ৯ ই আগস্ট ইতালিতে বিজ্ঞানী আমেদিও অ্যাভোগাড্রো( 9 August 1776 – 9 July 1856) জন্মগ্রহণ করেন। ১৮১২ খ্রিস্টাব্দে ইতালীয় পদার্থবিজ্ঞানী আমেদিও অ্যাভোগাড্রো গ্যাসের আয়তন ও অণুর সম্পর্কীয় একটি সূত্র প্রস্তাব করেন। তাঁর দেয়া এ প্রস্তাবটি যদিও বিগত প্রায় ২০০ বছর যাবৎ নির্ভুল প্রমাণিত হয়ে আসছে অর্থাৎ […]
error: কপি নয় সৃষ্টি করুন
%d bloggers like this: